চিটাগং অ্যাসোসিয়েশনের পিকনিকে অভূতপূর্ব সাড়া

Dhaka Post Desk

আহসান রাজীব বুলবুল, কানাডা প্রতিনিধি

০৯ আগস্ট ২০২২, ০৫:০৮ পিএম


চিটাগং অ্যাসোসিয়েশনের পিকনিকে অভূতপূর্ব সাড়া

কানাডায় বসবাসরত চট্টগ্রামবাসীদের ঢল নেমেছিল পিটারবোরোর নিকোলাস ওভাল প্যাভিলিয়ন পার্কে। টরন্টো শহর থেকে ১২৫ কিলোমিটার দূরে নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ঘেরা নিকোলাস ওভাল প্যাভিলিয়নে পিকনিকের আয়োজন করেছিল চিটাগং অ্যাসোসিয়েশন কানাডা। আর এই আয়োজনকে ঘিরেই যেনো অভূতপূর্ব এক মিলনমেলায় পরিণত হয় পিকনিক। আয়োজকদের দাবি, শহরের সবচেয়ে বড় এবং অত্যন্ত সুশৃঙ্খল বনভোজন ছিল এটি। 

টরন্টো থেকে বিশেষ বাসে কানাডার বিভিন্ন শহরে বসবাসরত চট্টগ্রামবাসীকে নিয়ে যাওয়া হয় পিটারবোরো শহরে। ফলে বাংলাদেশে দূরবর্তী কোনো শহরে পিকনিকে যাওয়ার স্মৃতিকে নতুন করে জাগিয়ে দেয় এই বাসযাত্রা। 

টরন্টোয় সফরে আসা চট্টগ্রামের প্রভাবশালী দৈনিক পূর্বকোণের পরিচালনা সম্পাদক জসিমউদ্দিন চৌধুরী এতে সম্মানিত অতিথি হিসেবে অংশ নেন। অ্যাসোসিয়েশনের নেতাকর্মীসহ সবাই জসিমউদ্দিন চৌধুরীকে স্বাগত জানান।

সংগঠনের সভাপতি সরওয়ার জামানের সভাপতিত্বে জসিমউদ্দিন চৌধুরীকে সংবর্ধনা জানিয়ে বক্তব্য রাখেন শিবু চৌধুরী, আলমগীর হাকিম, নাসিরউদ্দৌজা, সেলিনা হোসাইন, সৈয়দ শওকত, সেলিনা সরওয়ার, মো. শামসুদ্দিন খলেদ সেলিম। অনুষ্ঠানে উপস্থিত সবাইকে ধন্যবাদ জানান সংগঠনের ট্রেজারার সনৎ বড়ুয়া, মো. সোলায়মান, কফিল উদ্দিন পারভেজ, মো. আজম, বিশ্বজিৎ পাল, আব্দুল মোমেন জুয়েল, আমিনুল ইসলাম, ড. মঞ্জুর মোর্শেদ, ব্যারিস্টার আশরাফুল করিম রনি, ডা. সাগুফা আনোয়ার, শরীফা কামাল মসী প্রমুখ। 

পিকনিকে মজাদার খাবার দাবারের বাইরেও সববয়সীদের জন্য বিভিন্ন রকমের খেলাধুলা এবং বিনোদনের ব্যবস্থা ছিল। 

সকালে পিকনিকস্থলে পৌঁছানোর পরপরই সবাইকে নাস্তা পরিবেশন করা হয়। কায়সার কবিরের নেতৃত্ব আয়েশা, মৌসুমী, ফৌজিয়া, শওকত হোসাইনসহ অন্যান্য ভলান্টিয়াররা নাস্তা বিতরণ করেন। শিবু চৌধুরীর নেতৃত্বে খাবার রান্না এবং বিতরণে নিরলস পরিশ্রম করেছেন একটি টিম যারা সবার অকুণ্ঠ প্রশংসা অর্জন করেছেন।

স্পোর্টসকে ঘিরে নানা বয়সী ছেলেমেয়ের কলকাকলিত স্পোর্টস গ্রাউন্ড যেন কচিকাঁচাদের মেলায় পরিণত হয়। স্পোর্টস আয়োজনে ছিলেন ফারাহ হোসাইন ফৌজিয়া। তাদের সহযোগিতা করেছেন তরী, মুনতাহার, উজান। স্পোর্টসের সব পুরস্কার স্পন্সর করে চট্টগ্রামের বিশিষ্ট ব্যবসা প্রতিষ্ঠান শেঠ প্রপারটিজ।

সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানটি ছিল মনমুগ্ধকর। স্লো বিটের সুরের মূর্ছনায় যেমন সবাই মোহিত ছিল, ঠিক তেমনি হাই বিটের গানের তালে ছোট বড় সব বয়সের উত্তাল নৃত্য এক অপূর্ব আনন্দময় দৃশ্যের অবতারণা করে। উপস্থিত অতিথিদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয় চট্টগ্রাম আইডল সঙ্গীত প্রতিযোগিতা। সব আয়োজনে বিশেষ করে ইয়াং জেনারেশনের অংশগ্রহণ ছিল চোখে পড়ার মতো। বিকেল না নামতেই পরিবেশিত হয় মিষ্টি, ঝাল মুড়ি, তরমুজ, ঐতিহ্যবাহী বেলা বিস্কুটসহ দিনব্যাপী ছিল চা বিতরণ। এর মধ্যে অনুষ্ঠিত হয় দুইশ এর বেশি নারীর অংশগ্রহণে জমজমাট মিউজিক বিটের তালে তালে পিলো পাস গেমস। 

কানিজ ফাতেমার আয়োজনে র্যাফল ড্র-এর টিকিট বিক্রি ছিল রেকর্ড পরিমাণ। বিনয় দার নেতৃত্বে দিনব্যাপী চা বিতরণ চলছিল।অনুষ্ঠানে সঙ্গীত পরিবেশনায় ছিলেন মৌসুমী বড়ুয়া, মুক্তা পাল, সিরাজী, আলো, শেখর, মারুফ। নাম জানা এবং অজানা অসংখ্য ভলান্টিয়ার এই পিকনিক আয়োজনে অবদান রেখেছেন।

পুরো অনুষ্ঠান সঞ্চালনায় ছিলেন সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক সব্যসাচী চক্রবর্তী। পরিবারের এক সদস্যের আকস্মিক অসুস্থতার কারণে অনুপস্থিত পিকনিক কনভেনর শাহাবউদ্দিন বুলবুলকে সবাই মিস করেন এবং দ্রুত আরোগ্যর জন্য দোয়া করেন। সব স্পন্সর বিশেষ করে টরন্টো ঢাকা টরন্টোর টিকিট নিশিথা ফুডসহ ২৩টি র্যাফল ড্র-এর পুরস্কার প্রদানকারী ব্যবসায়ীক প্রতিষ্ঠানকে এবং চারটি বাস স্পন্সর কানন গার্ডিয়ান ফার্মেমি, রিয়েলেটর টিম সোলায়মান, রিয়েলেটর সরওয়ার জামান এবং রিয়েলেটর সনৎ বড়ুয়াকে সংগঠনের পক্ষ থেকে আন্তরিক কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করা হয়।

জেডএস

Link copied