পুলিশ পাহারায় মালয়েশিয়ায় পাসপোর্ট নিচ্ছেন বাংলাদেশিরা

Dhaka Post Desk

আহমাদুল কবির

১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১, ০১:১৭ পিএম


পুলিশ পাহারায় মালয়েশিয়ায় পাসপোর্ট নিচ্ছেন বাংলাদেশিরা

পুলিশ পাহারায় বাংলাদেশি নাগরিকদের পাসপোর্ট বিতরণ করছে মালয়েশিয়ার ক্লাং পোস্ট অফিস। আজ (বুধবার) সকালে বিভিন্ন শর্তআরোপের মাধ্যমে  বাংলাদেশ দূতাবাসের মাধ্যমে নবায়নকৃত পাসপোর্টগুলো বিতরণ করা হচ্ছে। 

মূলত বাংলাদেশিদের পাসপোর্ট নিতে লম্বা লাইনের একটি ভিডিও ভাইরাল হওয়ার পর পুলিশ পাহাড়া বসানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। পাসপোর্ট বিতরণের স্থানে করোনার বিভিন্ন বিধিনিষেধ ঠিক মতো মানা হচ্ছে কি না মূলত সে বিষয়টিই দেখছে পুলিশ। 

মালয়েশিয়ায় গত বছরের মার্চ থেকে করোনার কারণে নানা বিধিনিষেধ চলছে। এ বিধিনিষেধের কারণে লোক সমাগমের ওপরও জারি করা হয় কঠোরতা।

এমন পরিস্থিতিতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের কথা চিন্তা করে দূতাবাস সশরীরে এসে পাসপোর্ট রিনিউ না করতে এবং একইসঙ্গে পোস্ট অফিসের মাধ্যমে পাসপোর্ট জমা দিতে নোটিশ জারি করে। নোটিশে বলা হয়, রি-ইস্যু ফরম জমা দেওয়ার সময় অবশ্যই ব্যক্তিগত হোয়াটসঅ্যাপ নম্বর দিতে হবে। যাতে পাসপোর্ট জমা শেষে নিজ নিজ মোবাইলে মেসেজ দেওয়া হবে। 

পোস্ট অফিসের মাধ্যমে পাসপোর্ট জমা দেওয়া কার্যক্রম শুরু হলেও অনিশ্চয়তায় পড়েন বাংলাদেশিরা। এক থেকে তিন মাস বা তার অধিক সময় চলে গেলেও ব্যক্তিগত মোবাইলে মেসেজ তো দূরের কথা অনলাইনে নামও পাওয়া যায়নি বলে অভিযোগ রয়েছে।

এদিকে মালয়েশিয়ায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বাড়তে থাকায় দূতাবাসে এসে পাসপোর্ট সংগ্রহ করা খুবই কঠিন হয়ে পড়ে। দূতাবাসেও বাড়তে থাকে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। সব বিষয় বিবেচনা করে প্রাথমিক অবস্থায় মোবাইল কলের মাধ্যমে পরবর্তীতে অনলাইনের মাধ্যমে অ্যাপয়েন্টমেন্ট নেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়। এক্ষেত্রে অধিকাংশ প্রবাসীই অনলাইন সেবা বুঝতে না পারায় পাসপোর্ট দূতাবাসে এসেছে কি না বা কীভাবে আবেদন করতে হয় এসব বিষয়ে জটিলতার মধ্যে পড়ে যান। অন্যদিকে বন্ধ করে দেওয়া হয় সরাসরি দূতাবাসে এসে পাসপোর্ট সংগ্রহ করা। চালু করা হয় পোস্ট অফিসের মাধ্যমে পাসপোর্ট বিতরণ।

অনলাইনের মাধ্যমে সঠিক প্রক্রিয়ায় আবেদন সম্পন্ন করার পর পাওয়া যায় কাঙ্ক্ষিত পাসপোর্ট। আর অনলাইন প্রক্রিয়াতে রয়েছে বেশকিছু ধাপ, যা পূরণে সাধারণ প্রবাসীদের ব্যাপক ঝামেলায় পড়তে হয়েছে। দূতাবাসে পাসপোর্ট এসে মাসের পর মাস পড়ে থাকলেও অনলাইনে পাসপোর্ট ডেলিভারি নম্বর না পাওয়ায় সময় মতো পাসপোর্ট পাচ্ছেন না অধিকাংশ বাংলাদেশি।

দূতাবাসের কড়া নিরাপত্তায় ভেতরে প্রবেশের সুযোগ হলেও কাউন্টারে থাকা কর্মকর্তাদের আচরণ রহস্যজনক বলে অনেকে অভিযোগ তুলেছেন। নিজেদের সমস্যার সমাধান না পেয়ে নিরাশ হয়ে ফিরছেন অনেকেই। কেউ বা বাধ্য হচ্ছেন দালাল ধরতে। আবার কেউ অভিযোগ করছেন টাকার বিনিময়ে দূতাবাসে না গিয়েও মিলছে পাসপোর্টসহ সব সেবা।

সম্প্রতি মালয়েশিয়ায় বসবাসরত বাংলাদেশিদের সেবা নিশ্চিত করতে তিনটি নিবেদিত মোবাইল নম্বর চালু করেছে মালয়েশিয়ার বাংলাদেশ দূতাবাস। গত ৪ আগস্ট মালয়েশিয়ার বাংলাদেশ হাইকমিশন এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানায়।

এনএফ

Link copied