মালয়েশিয়ার মালাক্কা রাজ্যের নতুন মুখ্যমন্ত্রী সুলাইমান

Dhaka Post Desk

আহমাদুল কবির, মালয়েশিয়া

২১ নভেম্বর ২০২১, ০৬:০৬ পিএম


মালয়েশিয়ার মালাক্কা রাজ্যের নতুন মুখ্যমন্ত্রী সুলাইমান

মালয়েশিয়ার মালাক্কা রাজ্যে ক্ষমতায় বসল বারিসান ন্যাশনাল। শনিবার (২০ নভেম্বর) ওই রাজ্যে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। 

বারিসান ন্যাশনাল বড় জয়লাভের পর রোববার (২১ নভেম্বর) গভর্নরের অফিসের দেওয়ান সেরি উতামাতে মালাক্কা ইয়াং দিপারতুয়া নেগেরি তুন মোহাম্মদ আলী রুস্তমের সামনে ১৫তম মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন দাতুক সেরি সুলাইমান মো. আলী (৫৫)।

গত বছরের মার্চে তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী আদলি জাহারি রাজ্য বিধানসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠ সমর্থন হারানোর পর সুলাইমানকে মালাক্কার মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে নিযুক্ত করা হয়েছে।

সুলাইমান ১৯৬৫ সালের ২০ ডিসেম্বর কাম্পুং দুরিয়ান দাউন, মসজিদ তানাহ, আলোর গাজাতে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি মালয়েশিয়ান মেরিটাইম একাডেমিতে ক্যাডেট প্রশিক্ষণে যোগদানের আগে সেকোলাহ কেবাংসান দুরিয়ান দাউনে প্রাথমিক শিক্ষা এবং সেকোলাহ মেনেঙ্গাহ মসজিদ তানাহতে মাধ্যমিক শিক্ষা লাভ করেন। মাস্টার্স ইন ম্যানেজমেন্ট কিউএসি (ইউকে) সুলাইমান দাতিন সেরি মুনিরা এম. ইউসপকে (৫৪) বিয়ে করেছেন। এই দম্পতির দুটি ছেলে ও একটি মেয়ে রয়েছে।

তিনি ২০১৩ সালে ১৩তম সাধারণ নির্বাচনে (জিই ১৩) লেন্দু বিধানসভার সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন। প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী আসরি শাইক আব্দুল আজিজকে ২ হাজার ৫০৩ ভোট সংখ্যাগরিষ্ঠতায় পরাজিত করেন ও ২০১৮ সালে জিই ১৪-এ আসনটি ধরে রাখেন।

২০১৩ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত রাজ্যের অর্থনৈতিক পরিকল্পনা, বিনিয়োগ ও শিল্প কমিটির ডেপুটি চেয়ারম্যান হিসাবে কাজ করেছেন সুলাইমান। ২০ নভেম্বর রাজ্য নির্বাচনে তিনি পেরিকটান ন্যাশনালের আবদুল্লাহ মাহাদি এবং পাকাতান হারাপানের মুহাম্মদ আসরি ইব্রাহিমের বিপরীতে ৩ হাজার ১০৪ ভোটের বিশাল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে আবারও আসনটি ধরে রেখেছেন।

৪ অক্টোবর, চার রাজ্য বিধানসভা সদস্য ইদ্রিস হারন (সুঙ্গাই উদং), নর আজমান হাসান (পান্তাই কুন্দর), নরহিজাম হাসান বাকতি (পেংকালান বাতু) ও নুর এফান্দি আহমেদ (তেলোক মাস) সুলাইমানের প্রতি তাদের সমর্থন প্রত্যাহার করার ফলে রাজ্য বিধানসভা ভেঙে দিয়ে রাজ্য নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

এদিকে রাজ্যে নির্বাচনে জয়ের পর ইশতেহারের প্রতিশ্রুতি পূরণের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন বারিসানের নেতারা। অভিনন্দন বার্তায় তারা জানান, সময় এসেছে সকল বিজয়ী প্রার্থীদের জনসাধারণের সেবার দিকে মনোনিবেশ করার।

ওএফ

Link copied