দেবী দুর্গার বোধনের মধ্য দিয়ে শুরু হলো দুর্গোৎসব

Dhaka Post Desk

নিজস্ব প্রতিবেদক

০১ অক্টোবর ২০২২, ১০:৫২ এএম


দেবী দুর্গার বোধনের মধ্য দিয়ে শুরু হলো দুর্গোৎসব

মণ্ডপে মণ্ডপে দেবী দুর্গার বোধনের মাধ্যমে শুরু হলো সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব দুর্গাপূজা। শনিবার (১ অক্টোবর) মহাষষ্ঠী। মহাষষ্ঠী দিয়ে শুরু হওয়া দুর্গোৎসব আগামী ৫ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হবে।

জানা গেছে, মণ্ডপে মণ্ডপে সকাল সাড়ে ৭টায় কল্পারম্ভ এবং বোধন আমন্ত্রণ ও অধিবাসের মধ্যদিয়ে উৎসবের প্রথম দিন ষষ্ঠী পূজা শেষ হয়েছে। এছড়া মণ্ডপে মণ্ডপে শুরু হয়েছে চন্ডিপাঠ।

সনাতনী শাস্ত্র অনুযায়ী আরও জানা যায়, এবার দেবী দুর্গা জগতের মঙ্গল কামনায় গজে (হাতি) চড়ে মর্ত্যালোকে (পৃথিবী) আসবেন। এতে প্রাকৃতিক বিপর্যয় ঝড় বৃষ্টি হবে এবং শস্য ও ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে। অন্যদিকে স্বর্গে বিদায় নেবেন নৌকায় চড়ে। যার ফলে জগতের কল্যাণ সাধিত হবে।

আরও পড়ুন : শারদীয় দুর্গোৎসব : সম্প্রীতির উৎসব 

আরও জানা গেছে, রোববার (২ অক্টোবর) উৎসবের দ্বিতীয় দিন মহাসপ্তমীর পূজা অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৬টা ৩০মিনিটে। সোমবার মহাঅষ্টমীর পূজা অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৯টা ৩০ মিনিটে এবং বেলা ১১টায় অনুষ্ঠিত হবে কুমারী পূজা। সন্ধিপূজা শুরু  হবে বিকেল ৪টা ৪৪ মিনিটে এবং সমাপন বিকেল ৫টা ৩২ মিনিটের মধ্যে। মঙ্গলবার সকাল ৬টা ৩০ মিনিটে শুরু হবে নবমী পূজা। পুষ্পাঞ্জলি সকাল ১০টা ৩০ মিনিটে। পরদিন বুধবার সকাল ৬টা ৩০ মিনিটে দশমী পূজা আরম্ভ, পুষ্পাঞ্জলি সকাল ৮টায় এবং পূজা সমাপন ও দর্পণ বিসর্জন হবে সকাল ৮টা ৫০ মিনিটের মধ্যে।

বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ সূত্রে জানা যায়, এবার সারা দেশে ৩২ হাজার ১৬৮টি মন্ডপে শারদীয় দুর্গা উৎসব উদযাপন করবে সনাতন ধর্মাবলম্বীরা। এসব মন্ডপে শারদীয় উৎসব নির্বিঘ্নে উদযাপন করার জন্য প্রশাসনের পাশাপাশি প্রতিটি পূজা উদযাপন কমিটিও নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। প্রতিটি মণ্ডপে মণ্ডপে লাগানো হয়েছে সিসিটিভি ক্যামেরা এবং স্বেচ্ছাসেবক দলের কমিটি করা হয়েছে মণ্ডপ পাহারার জন্য।

আরও পড়ুন : ধর্ম যার যার থাকুক, উৎসব হোক সবার 

অন্যদিকে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সূত্রে জানা যায়, এ বছরের শারদীয় দুর্গা উৎসব শান্তিপূর্ণভাবে যেন সনাতন ধর্মাবলম্বীরা উদযাপন করতে পারে সে জন্য কয়েক স্তর বিশিষ্ট নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। রাজধানী ঢাকাসহ সারা দেশে মণ্ডপগুলোর নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণের জন্য র‌্যাব ও পুলিশের নিরাপত্তা ব্যবস্থা থাকবে। এছাড়া প্রতিটি মণ্ডপে পূজার চলাকালীন আনসার সদস্যরা মোতায়েন থাকবেন নিরাপত্তার কাজে।

এমএসি/এসএম

Link copied